About fever and common cold – Just keep things simple

e7f88282288a0d7d3c95719ae7f94358-10

The climate of Dhaka is very unstable at the moment. At times, the weather is extremely exhausting while at other times, it’s quite wet due to rainfall. Dhaka’s pollution and dense population have already put a question mark over its hygienic status and now, this sort of weather makes Dhaka’s hygienic status quite critical. Such sort of weather gives rise to various health problems and among many, fever and common cold are a common phenomenon and at the moment, many of the residents of Dhaka are suffering from such a health problem.

Whenever, a patient of this country suffers from common cold and fever, he or she immediately starts taking antibiotics without the advice of a physician or they do such according to the advice of a medical-shopkeeper. Such a practice is very bad as because, this common cold and fever happens mostly due to a viral infection and in such cases, antibiotics have no role to play. By practicing such, the majority of the patients of Dhaka and outside Dhaka is  inviting a fatal problem: Antibiotic resistance.

If a patient keeps on taking antibiotics, according to their whims, they are sure to develop antibiotic resistance and there might come a time when, his or her body might not be responsive to any antibiotics in the near future.

If you are suffering from a common cold and fever then, just go for a symptomatic treatment:

1. For fever take antipyretics like paracetamol.
2. For running nose and cough, take suitable antihistamines according to the advice of your physician.

3. Drink more warm water and lemon juice.

4. Take enough rest and don’t forget to keep a napkin or tissue paper so that you can use it while sneezing and avoid the spreading of respiratory droplets which is contagious in nature.

5. Consult with your physician.
You can prevent fever, and the common cold by yourself as well:
1. Avoid drinking ice-cold water and soft drinks in hot climates.

2. Avoid smoking.

3. Avoid taking a bath while you are still sweating.

4. Avoid dust and pollution as much as you can.

5. Clean your room regularly to keep it free from dusts. 

6. Spend less time in air-conditioned room. You can switch on the AC when it’s needed. Otherwise, don’t spend too much time there as Legionella infections occur from air-conditioners.
Always consult with your physician about any health problems and make sure your physician is registered medical practitioner. Avoid treating yourself and listening to what a medical-shopkeeper says.

Thank You

Faisal Caesar

 

 

Thalassaemia

bloodstream-large__4_

Thalassaemia is the most common inherited gene disorder in the world and varies in different population groups in the world. With global improvement in childhood diseases, due to prevention and treatment with targeted programs to prevent mortality from malnutrition, diarrhoea & acute respiratory infections, thalassaemia will become a major issue in developing countries like Bangladesh in this millennium. World Health Organization (WHO) estimates that at least 6.5% of the world populations are carriers of different inherited disorders of Hemoglobin. It is predicted that when the world population finally stabilizes, at least 8.0% of the world population will be the carrier or trait of different types of thalassaemia syndromes & hemoglobinopathies.

The world population of carriers of beta thalassemia trait is reported to be more than 100-million worldwide and about 100,000 children with Thalassaemia major are born each year. Abnormal hemoglobin, called hemoglobin-E, which is quite common in Bangladesh no definite data regrading carrier status of the hereditary hemoglobin disorder exist.

No screening program had ever been taken in any population group. A conservative World Health Organization (WHO) report estimates that about 3.0% of populations are carriers of Beta thalassaemia and 4.0% are carriers of Hb-E in Bangladesh, which means that there are about 3.6-million carriers of beta thalassemia and 4.8-million carriers of Hb-E and affected birth per thousand of Beta halassemia is 0.106 & 3.000 of Hb-E/Beta thalassemia and affected birth per thousand of Beta thalassemia is 0.106 & 0.300 of Hb-E/Beta thalassemia. It is presumed that approximately six thousand thalassemic children are born each year in Bangladesh.

The birth of a thalassemic child could create a negative impact not only on the affected child and its family, but also to the whole community and country and the country’s economy as well, as because, without a healthy young generation, no country cannot advance forward.

All over the world, efforts are being made to prevent the birth of thalassemic children and to improve the quality of life those who are suffering. Thalassemia needs to be recognized as an important health issue in this country and necessary steps are needed to be taken to control the birth of thalassemic babies.

What is Thalassaemia?

Thalassaemia is an inherited (passed from parents to children through genes) blood disorder caused when the body doesn’t produce enough hemoglobin, which is an essential component of Red Blood Cells. When there isn’t enough hemoglobin, the function of body’s Red Blood Cells is dented  and their life span is shortened and for which,  there are fewer healthy red blood cells traveling in the bloodstream.

Red blood cells carry oxygen to all the cells of the body. Oxygen is a sort of food that the cells use to function. When there are not enough healthy red blood cells, there is also not enough oxygen delivered to all the other cells of the body, which may cause a person to feel tired, weak or short of breath. This is a condition called anemia. People with thalassaemia may have mild or severe anemia. Severe anemia can damage organs and lead to death.

 

What are the different types of thalassaemia?

When we talk about different “types” of thalassaemia, we might be talking about one of two things: the specific part of hemoglobin that is affected (usually either “alpha” or “beta”), or the severity of thalassaemia, which is noted by words like trait, carrier, intermedia, or major.

Hemoglobin, which carries oxygen to all cells in the body, is made of two different parts, called alpha and beta. When thalassaemia is called “alpha” or “beta,” this refers to the part of hemoglobin that isn’t being made. If either the alpha or beta part is not made, there aren’t enough building blocks to produce  normal amounts of hemoglobin. Low alpha is called alpha thalassaemia. Low beta is called beta thalassaemia.

When the words “trait,” “minor,” “intermedia,” or “major” are used, these words describe how severe the thalassaemia is. A person who has thalassaemia trait may not have any symptoms at all or may have only mild anemia, while a person with thalassaemia major may have severe symptoms and may need regular blood transfusions.

In the same way that traits for hair color and body structure are passed down from parents to children, thalassaemia traits are passed from parents to children. The type of thalassemia that a person has, depends on how many and what type of traits for thalassaemia a person has inherited, or received from their parents. For instance, if a person receives a beta thalassaemia trait from his father and another from his mother, he will have beta thalassaemia major. If a person received an alpha thalassemia trait from her mother and the normal alpha parts from her father, she would have alpha thalassaemia trait (also called alpha thalassaemia minor). Having a thalassaemia trait means that you may not have any symptoms, but you might pass that trait on to your children and increase their risk of having thalassaemia.

Sometimes, thalassaemias have other names, like Constant Spring, Cooley’s Anemia, or hemoglobin Bart hydrops fetalis. These names are specific to certain thalassemias – for instance, Cooley’s Anemia is the same thing as beta thalassaemia major.

How do I know whether I have thalassaemia or not?

People with moderate and severe forms of thalassaemia usually find out about their condition in childhood, since they have symptoms of severe anemia early in life. People with less severe forms of thalassaemia may only find out because they are having symptoms of anemia, or maybe because a doctor finds anemia on a routine blood test or a test done for another reason.

Because thalassaemias are inherited, the condition sometimes runs in families. Some people find out about their thalassaemia because they have relatives with a similar condition.

People who have family members from certain parts of the world have a higher risk for having thalassaemia. Traits for thalassemia are more common in people from Mediterranean countries, like Greece and Turkey, and in people from Asia, Africa, and the Middle East. If you have anemia and you also have family members from these areas, your doctor might test your blood further to find out if you have thalassemia.

How can I prevent thalassaemia?

Since it is a severe and incurable disease, emphasis must shift from the treatment of the affected child to prevention of this disease. All forms of thalassemia are transmitted hereditically. Identification of carriers of the thalassemia gene plays an important role in preventing this fatal, but preventable disease.

If you or your partner knows about family members with thalassaemia, or if you both have family members from places in the world where thalassemia is common, you can speak to a genetic counselor .

The following steps to be recommended and which are being followed in many countries :

 

  1. Creating awareness

Creating awareness via the print and electronic media can be very useful and the appropriate utilization of social media can be very helpful as well.  The government must also take steps to create awareness among the rural populations by involving thana health complexes and other different local organizations through different activities like seminars, symposium, publications etc. It is a very sad-affair that other than Dhaka, no facilities exist for the diagnosis of thalassemia in any other parts of the country.

 

  1. Population screening

Population screening  of such vast group of people is quite a hectic job, but a cheap and easily accessible screening method is available to detect the carriers.

“NESTROF {Naked Eye Single Tube Red Cell Osmotic Fragility) has been developed along with the morphology of red cells & red cell indices (MCV, MCH, RWD) for detection of beta-thalassemia trait & other hemoglobinpathies like Haemoglobin-E trait which is most common abnormal hemoglobin in Bangladesh and showed to be very effective in mass population screening.

It is done in India, Iran, Thailand and Iraq. In Iraq this screening method was applied in national survey to detect the carrier- state all over the Iraq .

This screening test for carrier detection is active in Bangladesh as well. A practical approach would be to perform NESTROF in an accessible way to the unmarried cohort of peoples like adolescents at school leaving or before starting college, or young adults starting a job or going to marry, must perform this screening HbA2 or Hb-E. By diagnosing and counseling thalassemia carriers, it becomes feasible and attractive alternative for prevention of thalassemic birth in our country.

 

  1. Genetic counseling

Genetic counseling needs to be given to thalassemia carriers and parents who have a thalassemic child. It should be not-directive and the counselor’s main role is to provide people at risk with full information; give them time for consideration and support them in making decisions.

Thank You

Faisal Caesar

 

ব্যাপারটি যে Sepsis

হঠাৎ করেই দেখা গেল কেউ একজন অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তার লক্ষন গুলোর মধ্যে হয়ত ছিলো  প্রচণ্ড জ্বর এবং তার সাথে শরীরের কোন একটি অংশে ব্যথা, পাতলা পায়খানা কিংবা বমি করা। এখন এসব লক্ষন গুলোর জন্য যে একজন রোগীর আইসিইউ সাপোর্ট লাগতে পারে এবং মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে সেটি এই দেশের অনেকেরই ধরানা নেই। এই ধরনের রোগীকে আইসিইউতে ভর্তি হবার পরামর্শ দিলে কিংবা এদের হঠাৎ করে মৃত্যু হলে,  চিকিৎসকের পয়সা কামানোর ধান্দা কিংবা অবহেলাকে দায়ী করা হয়। কিন্তু বাস্তবিক অর্থে, রোগীর লোকজন অজ্ঞতা বশত এই কাজটি করে থাকেন।

জ্বর, শরীরের কোন একটি অংশে ব্যথা, বমি কিংবা পাতলা পায়খানার জন্য একজন রোগীর আইসিইউ কেনই বা লাগবে কিংবা তার মৃত্যুই বা কেন হবে? এসব লক্ষন গুলো তখনই একজন রোগীর মধ্যে দেখা দেয় যখন তার শরীরে কোন রোগ জীবাণু বাসা বাঁধে (ব্যাকটেরিয়া, ভাইরাস এবং ফাঙ্গাস)। কিছু রোগ জীবাণুর বিস্তার এত দ্রুত হয় যে সেটি রোগীকে একটি মরনাপন্ন অবস্থাতে নিয়ে যায় যার নাম Sepsis এবং এটির জন্য একজন রোগীর মাল্টি-অর্গান- ডিসফাংশন ডেভেলপ করে অর্থাৎ, শরীরের একের অধিক অঙ্গপ্রত্যঙ্গ যেমনঃ হৃৎপিণ্ড, ফুসফুস, যকৃৎ কিংবা কিডনীর কার্যকারিতা কমে যায় যাকে চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় Septic Shock বলা হয়। এই প্রক্রিয়াটি এতই দ্রুত গতিতে হতে থাকে যে একসময় এসব অর্গান গুলোর কাজ করা বন্ধ হয়ে যায় এবং রোগী মৃত্যুর কোলে ঢোলে পড়ে।

২০১২ সালে যুক্তরাষ্ট্রে ররি সানটন নামে এক ১২ বছরের ছেলে শুধু মাত্র বমি এবং পায়ে ব্যথার কমপ্লেইন নিয়ে চিকিৎসকের কাছে এসেছিলো। তাকে হাসপাতালে অবসারভেসনের জন্য থাকতে বলা হলেও তার বাবা-মা সামান্য বমির জন্য হাসপাতালে থাকতে রাজি হননি। কিন্তু তিনদিন পর ছেলেটি মারা যায় যার কারন ছিলো Septic Shock।

বুঝুন ব্যাপারটি কতটা ভয়ংকর।

Sepsis-এর কারনে বাংলাদেশে, বিশেষ করে আমাদের ঢাকা শহরে কতভাগ রোগীর মৃত্যু হয় সেটির সঠিক হিসাব আমার জানা নেই (এর জন্য ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি) তবে সেটির শতকরা হার আশংকা জনকই হবে বলে মনে করি।

একজন রোগী কেন Sepsis-এ আক্রান্ত হয়? এটার কারন আগেই বলেছি। তবে রোগ জীবাণু থেকে রক্ষা পেতে হলে অবশ্যই সকল বিষয়ে পরিষ্কার পরিছন্নতা অবলম্বন করা উচিৎ। দুঃখজনক ব্যাপারটি হলো, আমাদের ঢাকার পরিবেশ এতটাই অপরিছন্ন যে এখানে পরিষ্কার পরিছন্নতার ব্যাপারটি মেইনটেইন করা খুবই কঠিন হয়ে যায়।

কিন্তু হাল ছেড়ে দিলে কি চলবে? সাবধানতার মার নেই ভাই। একজন রোগী যদি সচেতন হন তবে অনেক ক্ষেত্রেই তার চিকিৎসা করাটা ও সহজ হয়ে যায়। এই যেমন, কোন লক্ষণকেই অবহেলা করা উচিৎ নয়। সময় মতো আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ নিন এবং তার উপদেশ গুলো মেনে চলুন। এতে আপনারই উপকার হবে।

হ্যাঁ, এই কন্ডিশন থেকে বেরিয়ে আসটা একজন রোগীর জন্য অনেক কঠিন বিশেষ বয়স্ক রোগীদের জন্য কামব্যাক করাটা বেশ কঠিন।  কিন্তু তারপরও একজন চিকিৎসক হাল ছেড়ে দেন না। তবে এই ক্ষেত্রে রোগী এবং রোগীর লোকজনদেরকে একজন চিকিৎসককে সহযোগিতা করতে হবে।

সবশেষে বলতে চাই, আমাদের দেশের ক্রিটিক্যাল কেয়ার ব্যবস্থা বিগত কয়েক বছরে অনেক উন্নতি করেছে। তবে আইসিইউর খরচ অনেকেই পোষাতে পারেন না। এর জন্য হয়ত অনেক রোগী পিছিয়ে আসেন। সরকারী এবং অনেক বেসরকারী হাসপাতালে সিসিইউ-এর খরচ কিন্তু মানুষের সাধ্যের মধ্যে চলে এসেছে এবং আমি আশা করছি আগামী দিন গুলোতে আইসিইউর এই চিত্রটা বদলাবে। এই ক্ষেত্রে, আই সি ইউর খরচের ব্যাপারটি যদি সরকার কর্তৃক একটি নির্দেশমালা তৈরি করে দেওয়া হয় তাহলে অনেকেই উপকৃত হবেন বলে মনে করছি। আইসিইউর সাথে সম্পৃক্ত চিকিৎসকগন এই ব্যাপারে আরও ভালো বলতে পারবেন।

ধন্যবাদ

ফয়সাল সিজার

 

চিকিৎসকদের পরামর্শ না মেনে চললে দোষটা কার?

বাপ্পির প্রথম ক্যান্সারের চিকিৎসা এত ভালো হয়েছিলো যে, আবার ক্যান্সার হবার সম্ভাবনা একদম ছিলোই না। বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজের জাফর মাসুদ ভাই এবং ডেল্টা মেডিকেল কলেজের লাভলু স্যার বাপ্পির যে চিকিৎসা দিয়েছিলেন সেটিত ফলাফল কতটা ভালো হয়েছিলো টা বাপ্পির খাবাএর রুচি এবং ওজন বৃদ্ধি দেখেই বোঝা যাচ্ছিলো। উনাদের দুজনেরই চিকিৎসা এবং ফলোআপ খুবই ভালো হয় এবং তাই উনাদের কাছে রোগীরা ছুটে যান ভালো চিকিৎসার জন্য। আমাদের বাংলাদেশের ডাক্তারেরা অনেক মেধাবী এবং দক্ষ। অন্যায় ভাবে এদেরকে হেয় করা হয়।

এখন রোগী যদি চিকিৎসকের পরামর্শ সঠিকভাবে মেনে না চলেন তাহলে একজন চিকিৎসক কি করতে পারেন? আমি বাপ্পিকে বারবার সাবধান হতে বলতাম যেন কোন রিস্ক ফ্যাক্টর যেমনঃ ধূমপান, জর্দা ইত্যাদি উনি যেন আর ব্যবহার না করেন কারন এগুলো আবার ক্যান্সারকে ফিরিয়ে আনবে এবং তখন সব পরিশ্রম বৃথা হয়ে যাবে।

কিন্তু বাপ্পি মনে করতেন জীবনেও তার আর ক্যান্সার হবে না এবং তাই তিনি লুকিয়ে, লুকিয়ে আমাদের বাসার পাশের দোকানে ধূমপান করতেন। এই ব্যাপারটি আজকে জানলাম। Squamous Cell Carcinoma যদি আবারও গর্জে ওঠার উপাদান গুলো ফিরে পায় তাহলে তার রূপ ভয়ংকর হয়। বাপ্পির ক্ষেত্রে তাই হয়েছে। কোন কিছুতেই সেটি আর দমে যায়নি। আমি কড়া করে বকা দিয়ে জিজ্ঞেস করতাম তুমি নিশ্চয়ই কোন অকাজ করছ যেটা লুকিয়ে রাখছো। আমার কড়া কথা শুনে উনি অন্যদিকে হাঁটা দিতেন। আমার সন্দেহ ভুল ছিল না। শুধু বেয়াদপ ট্যাগটাই ভাগ্যে জুটত।

ছেলেমেয়ে বাবা-মায়ের সাথে খারাপ আচরন করে কিন্তু সেটির পেছনে কারন থাকে। যত্রতত্র তাদেরকে বেয়দপ উপাধি দেওয়া উচিৎ না। বেয়াদপিটা কারো ভালোর জন্যই করা হয়।

বাপ্পি, তুমি এই কাজ কেন করতে? এর ফলাফলটা কি হলো। তুমি আমাদেরকে ছেড়ে চলে গেলে। বাবার কাঁধে ছেলের লাশ সবচেয়ে ভারী জিনিস আর ছেলের কাঁধে বাবার লাশের ভাঁড়টা কেমন? কবরে নেমে নিজের বাবাকে মাটি দেওয়াটা কেমন ব্যাপার? এটা ভাষায় প্রকাশ করা যায় না।

মা-বাবাদের বড় সমস্যা হলো, নিজের ছেলে কিংবা মেয়ে ডাক্তার হলেও তাদের কথাকে অবহেলা করা। দরকার পড়লে পাশের বাড়ির ভাবি কিংবা ভাইদের পরামর্শ উনারা নিবেন কিন্তু নিজের ছেলে-মেয়ের পরামর্শ নিবেন না। ঘরে ডাক্তার থাকতে কেন অন্যের কাছে যেতে হবে?

ছেলে হিসেবে আমার নিজেকে খুবই অবহেলিত মনে হয় যখন আমার নিজের মা এবং বাবা আমার পরামর্শকে প্রাধান্য দেন না। দিন শেষে তো আমার কথাই ঠিক হয়। আমার মনে হয় আমার কাতারে আরও অনেকেই আছেন। যারা আছেন তারা আমার ব্যাপারটি খুব ভালোভাবে বুঝবেন।

আমার বাপ্পির ব্যাপারটি সবার জন্য শিক্ষণীয়। আমাদের দেশের চিকিৎসকগন নিজের সেরাটা উজার করে দিয়ে চিকিৎসা দেন কিন্তু আপনারা যদি সাধারন নিয়ম গুলো না মানেন তাহলে দোষটা কার একটিবার ভেবে দেখবেন প্লিজ।

 

ধন্যবাদ

ফয়সাল সিজার

ডেঙ্গুর মতই মারাত্মক জিকা!

504021256-aedes-aegypti-mosquitos-are-seen-in-containers-at-a-lab.jpg.CROP.promo-xlarge2

গত বছরে ব্রাজিলের মেয়ে মারিলা লিমাকে গর্ভাবস্থাতে এডিস মশা কামড় দেয়। লিমার মৃদু জ্বর হয় এবং ব্যাপারটি তিনি তার চিকিৎসক কে অবিহিত করলে উনারা লিমাকে ফলোআপ করতে থাকেন। প্রিনাটাল চেকআপের সময় আলট্রাসনোগ্রাফি স্টাডিতে লিমার গর্ভের শিশুর মধ্যে তার চিকিৎসক কিছু পরিবর্তন লক্ষ্য করেন।

লিমার শিশুটির মস্তিস্ক সঠিকভাবে বেড়ে উঠছে না। লিমার শিশুটি ছোট মাথা এবং অপরিপূর্ণ মস্তিস্ক নিয়ে জন্মায়। এই রোগের নাম মাইক্রোকেফালি। লিমা তার শিশুটির নাম রেখেছেন আর্থার। কিন্তু এই আর্থারকে নিয়ে লিমার দুঃখের সীমা নেই কারন এসব শিশুদের আয়ুস্কাল খুবই সীমিত হয়।

ব্রাজিলে শুধু আর্থারই নয়। প্রায় ৩৫, ০০০ শিশু এভাবে জন্মেছে।ব্রাজিলের চিকিৎসক ও গবেষকগণ একধরণের ভাইরাসকে দায়ী করছেন এর জন্য যার নাম জিকা ভাইরাস।

২০১৫ সালের অক্টোবর থেকে ২০১৬ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত দেশটিতে সাড়ে তিন হাজারেরও বেশি জিকা রোগীর নাম তালিকাভুক্ত করা হয়েছে।শুধু ব্রাজিল নয়, দক্ষিন আমেরিকার প্রায় ১৪-টি দেশ এখন জিকা ভাইরাস নামক আতংকের শিকার।

এদিকে গত ১৯ জানুয়ারী যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডাতে দুজন জিকা ভাইরাসের রোগী সনাক্ত করা হয়েছে। এরই মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র, গত শুক্রবার, ১৫ জানুয়ারীতে জিকা ভাইরাসের কারণে গর্ভবতী নারীদের ক্যারিবীয় ও লাতিন আমেরিকার ১৪ দেশ ও অঞ্চলে ভ্রমণ না করার সতর্ককতা জারি করেছে। যুক্তরাষ্ট্রে ২০০৭ সাল থেকে মোট ২৬ জনের শরীরে জিকা ভাইরাস শনাক্ত করা হয়েছে। তবে তারা প্রত্যেকে বাইরে থেকে এ রোগ বহন করে এনেছেন।

জিকা ভাইরাস কি?

জিকা ভাইরাস এক ধরনের ফ্লাভি ভাইরাস। এই ভাইরাসের বাহক এডিস মশা। ১৯৪৭ সালে উগান্ডার জিকা জঙ্গলে রেসাস বানরের শরীরে এই ভাইরাসের অনুসন্ধান মেলে এবং তাই এর নামকরন করা হয় জিকা ভাইরাস।

কিভাবে এই ভাইরাস ছড়ায়?

এডিস মশার কামড়ে মানুষের শরীরে এই ভাইরাস ঢুকে। Aedes aegypti, Aedes africanus, Aedes apicoargenteus, Aedes furcifer, Aedes hensilli, Aedes luteocephalus এবং Aedes vitattus প্রজাতির মশা গুলো এই ভাইরাসের ছড়ানোর জন্য মূলত দায়ী করা হয়। এদের মধ্যে, Aedes aegypti-এর মাধ্যমে জিকা ভাইরাসের ছড়িয়ে পড়ছে।

জেনে রাখা ভালো, এই Aedes aegypti ই ডেঙ্গু, ইয়েলো ফিভার এবং চিকুনগুনিয়ার মতো রোগের ভাইরাসও বহন করে। এই মশা দিনে কামড়ায় এবং ঘরের কোণে পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে থাকা ক্যান, টিনের কৌটা, মাটির পাত্র, বোতল, নারকেলের খোসা প্রভৃতিতে জমা পানিতে বংশবৃদ্ধি করে থাকে।

২০০৯ সালে একটি স্টাডিতে দেখা যায় যে জিকা ভাইরাস সেক্সুয়ালি মানবদেহে প্রবেশ করতে পারে। সেই বছর, কলোরাডো বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োলজিস্ট ব্রায়ান ফয় সেনেগালে মশাদের নিয়ে গবেষণার সময়ে একাধিকবার এডিস মশার কামড়ের শিকার হন। দেশে ফিরে আসার পর তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন এবং চিকিৎসকগন তাকে জিকার রোগী হিসেবে ডায়াগনোসিস করেন। কিন্তু অসুস্থ থাকা অবস্থাতে তিনি তার স্ত্রীর সাথে সহবাসে লিপ্ত হন এবং কিছুদিন পর তার স্ত্রী ও জিকা রোগে আক্রান্ত হন। এখন পর্যন্ত ফয় একমাত্র ব্যক্তি যিনি সন্ধিপদ প্রাণীবাহী কোন রোগ সেক্সুয়ালি কারও শরীরে প্রবেশ করিয়েছেন।

২০১৫ সালে গবেষণা করে দেখা যায় যে জিকা ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত প্রসূতি মার রক্তের মাধ্যমে তা মায়ের গর্ভে থাকা শিশুতে সংক্রামিত করতে পারে।

রোগের উপসর্গ সমূহ

এই রোগের উপসর্গ গুলো অনেকটা ডেঙ্গু জ্বরের মতই।

– হালকা থেকে মাঝারি জ্বর।

– মৃদু মাথা ব্যথা।

– মৃদু শরীর ব্যথা।

– মৃদু চোখ ব্যথা।

– চোখে রক্ত জমে লালচে হয়ে যাওয়া।

– শরীরের জয়েন্ট গুলোতে মৃদু ব্যথা।

চিকিৎসা

– পূর্ণ বিশ্রামে থাকা।

– প্রচুর পরিমানে পানি, স্যালাইন, ডাবের পানি, ফলের শরবত পান করা।

– জ্বর হলে পানিতে ভেজানো কাপড় দিয়ে বারবার শরীর মুছে দেওয়া।

– শরীরের তাপমাত্রা কমাতে প্যারাসিটামল গ্রুপের ঔষধ খাওয়া। তবে কোনো অবস্থায়ই ব্যথানাশক ওষুধ খাওয়া যাবে না।

ডেঙ্গুর ন্যায় জিকার ও কোন ভ্যাক্সিন এখনও আবিষ্কৃত হয়নি।

গর্ভবতী মায়েরা সাবধান!

ডেঙ্গু কিংবা ইয়েলো ফিভারের ন্যায় জিকা তীব্র থেকে তীব্রতর হয় না। কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই এই রোগ থেকে রোগী সুস্থ হয়ে উঠেন। এই রোগে মৃত্যুর হার ও খুবই কম। কিন্তু তারপরও সমগ্র বিশ্বে জিকাকে নিয়ে এত আতংকের কারন কি?

বিশ্বব্যাপি জিকা ভাইরাস নিয়ে হৈচৈ-এর মূল কারন হলো, এটি গর্ভে থাকা শিশুর অনেক ক্ষতিসাধন করে। কিছুদিন আগেও চিকিৎসক এবং গবেষক সমাজ এটাকে গুরুত্ব দিতেন না, কিন্তু ব্রাজিলে বেশ কয়েক মাস ধরে এই ভাইরাসে আক্রান্ত গর্ভবতী মায়েরা মাইক্রোকেফালি শিশুর জন্মদানের পর থেকেই জিকা ভাইরাস একটি আতঙ্কে রূপ নিতে থাকে। জিকা ভাইরাস কিভাবে মাক্রোকেফালি করে সেটি এখনও গবেষণারত অবস্থায় আছে।

প্রতিরোধই উত্তম পন্থা

আপাতত জিকা নিয়ে বাংলাদেশের আতঙ্কিত হবার কোন কারন আছে বলে মনে হচ্ছে না। তবে যে কোন ক্ষেত্রেই সাবধানতা অবলম্বন করা উচিৎ বলে মনে করি। এই রোগ মূলত আক্রান্ত অঞ্চল থেকে ট্র্যাভেল করে আসা টুরিস্টদের মাধ্যমেই আরেকটি অঞ্চলে ছড়ায়। এই ব্যাপারটি মাথায় রেখে বাংলাদেশের এয়ারপোর্ট গুলোতে উত্তম মনিটরিং-এর ব্যবস্থা রাখা উচিৎ। যেসব লোকজন জিকা আক্রান্ত অঞ্চল থেকে আসছেন সাথে, সাথেই রক্ত পরীক্ষা করে যেন তাদেরকে শনাক্ত করা যায় সেরকম কোন পদক্ষেপ নিলে ভালো হয়।

ঘরের আশেপাশে কোথাও যেন পানি জমতে না পারে সেই ব্যাপারটি সর্বদা লক্ষ্য রাখতে হবে। পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতাই এর মূল প্রতিরোধ ব্যবস্থা। মশার বংশবৃদ্ধি রোধ, মশা নিধন ও প্রতিরক্ষামূলক ব্যবস্থা নেওয়া উচিত।

ঘরের আঙিনা, ফুলের টব, বারান্দা, এসির নিচে জমানো পানি নিয়মিত পরিষ্কার করে রাখতে হবে। দিনের বেলা এডিস মশা কামড়ায় বলে দিনে মশানাশক স্প্রে বা মশারি ব্যবহার করতে হবে।

উপরোক্ত পদক্ষেপ গুলো গর্ভবতী মায়েদের জন্য অবশ্যই নিতে হবে। কারন ভুলে গেলে চলবে না জিকা গর্ভবতী মায়েদের গর্ভের শিশুর জন্য সবচেয়ে ক্ষতিকর।

বিঃ দ্রঃ এই লেখাটি ২১/০১/২০১৬ তারিখে Healthnewsbd.com এ ছাপা  হয়েছে ডেঙ্গুর মতই মারাত্মক জিকা!

ধন্যবাদ

ফয়সাল সিজার

মানসিক রোগের কারনে ব্যথা?

23মিসেস ফরিদা বেগমের (ছদ্ম নাম) প্রায়ই বুকে ব্যথা হয়। বুকে ব্যথার সাথে তার শ্বাসটা ও আটকিয়ে আসে। কোন দুঃসংবাদ শুনলে, ভয় পেলে কিংবা দুশচিন্তাগ্রস্থ হলেই তার এই সমস্যা দেখা দেয়। এমন কি, কয়েক দফা উনার শ্বাসকষ্টের পরিমান অনেক বেশী ছিলো এবং মাথা ঘুরে পড়েও গিয়েছেন কয়েকবার।

এই সমস্যা নিয়ে তিনি হৃদরোগ, ফুসফুস এবং মেডিসিন বিশেষজ্ঞেদের শরনাপন্ন হয়েছেন অনেকবার কিন্তু বুকের এক্সরে, ইসিজি, ইকোকার্ডিওগ্রাম কিংবা রক্তের পরীক্ষা করে তার ফুসফুস কিংবা হার্টের কোন রোগ ধরা পরেনি। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকগন ফরিদা বেগমকে ঘুমের ঔষধ প্রেস্ক্রাইব করেন এবং একজন মানসিক রোগ বিশেষজ্ঞের সাথে যোগাযোগ করার পরামর্শ দেন।

মানসিক রোগ থেকেও শরীরে অনেক ব্যথার উৎপত্তি হয় যাকে মেডিকেলের ভাষায় সাইকোজেনিক পেইন বলা হয়।

সাইকোজেনিক পেইন কি?

সাইকোজেনিক পেইন কিংবা মানসিক পীড়া এমন কত গুলো রোগের সমষ্টি যার উৎপত্তি শরীরের বিশেষ কোন অঙ্গপ্রত্যঙ্গের অকার্যকর হয়ে যাওয়া থেকে নয় বরঞ্চ মানসিক অশান্তি, চাপ এবং ভয়ভীতি থেকে আসে।

সাইকোজেনিক পেইন গুলো কেমন হতে পারে?

সাধারন কিছু লক্ষন গুলো হলোঃ

১। মাথা ব্যথাঃ এই ব্যথা ৩০ মিনিট থেকে ৭ দিন পর্যন্ত স্থায়ী হয় এবং একজন রোগী মাথার দুই দিকে – ডানদিকে এবং বামদিকে – ব্যথার কথা বলেন যা তীব্র নয়। রোগীর মনে হতে থাকে যে কেউ তার মাথা চেপে ধরে আছে।

২। পেটে ব্যথাঃ মানসিক চাপে ভুগতে থাকা একজন রোগীর পেটে অনবরত ব্যথা হতে থাকে তবে সেটি খাওয়া-দাওয়া কিংবা মলত্যাগের সাথে সম্পর্ক যুক্ত নয় এবং সহজে কোন ব্যথানাশকে এই ব্যথা দূর হয় না। একজন রোগীর পুরো পেট জুড়ে কিংবা ওপরের এবং তল পেটে এই ব্যথা হয়।

৩। বুকে ব্যথাঃ বেশীরভাগ রোগীই বুকে ধড়ফড় এবং ব্যথা নিয়ে চিকিৎসকের কাছে আসেন। এদের বুকে ব্যথা পরিশ্রম করলে হয় না বরঞ্চ ভয় পেলে এবং খুব বেশী দুশ্চিন্তা করলে হয়। এদের ইসিজি, ইকো এবং করোনারি এঞ্জিওগ্রাম নরমাল থাকে।

৪। পুরো শরীরে ব্যথাঃ এই ধরনের রোগীরা সমস্ত শরীরে ব্যথা নিয়ে আসেন বিশেষ করে ব্যাকপেইন কিংবা মাজাব্যথা।

উপরে উল্লেখিত ব্যথা গুলোর সাথে, সাথে মাসিক চাপে ভুগতে থাকা একজন রোগী ঘুম কম হওয়া, শ্বাসকষ্ট, খাওয়া-দাওয়া কমে যাওয়া, সারাদিন ক্লান্ত অনুভব করা, খিটখিটে মেজাজ ইত্যাদি লক্ষন গুলোর ও বহিঃপ্রকাশ ঘটে।

মানসিক রোগের কারনে এই ধরনের সমস্যার উৎপত্তি যে হয়েছে সেটি ফরিদা বেগম মেনে নিতে চাননি। কারন তার মতে মানসিক রোগ বিভাগে তারাই যান যারা পাগল এবং ফরিদা বেগম নিজেকে পাগল ভাবতে রাজী নন। কিন্তু শুধু পাগল হলেই কি একজন রোগীকে মানসিক রোগ বিশেষজ্ঞের কাছে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়?

অবশ্যই না।

ফরিদা বেগমের মতো অনেকেই ডিপ্রেশন, দুশ্চিন্তাগ্রস্থতা, ভীতসন্ত্রস্ত হওয়া কিংবা মানসিকচাপে ভুগছেন এবং এই চাপ থেকেই তাদের মাথা, বুক এবং পেটে ব্যথা হয় যা ওরগানিক কোন পেইন নয় বরঞ্চ এগুলো হলো সোমাটিক পেইন যাদের চিকিৎসা খুবই সহজ যদি সঠিকভাবে এসব রোগ নির্ণয় করা হয়। এবং বলে নেওয়া ভালো যে ডিপ্রেশন, দুশ্চিন্তাগ্রস্থতা কিংবা প্যানিক অ্যাটাকে ভোগা মানেই পাগল হয়ে যাওয়া নয়।

মানসিক রোগ নিয়ে আমাদের দেশের মানুষ এখনও দ্বিধাদ্বন্দে ভোগেন। বিভিন্ন সামাজিক কারনে তারা মানতে চান না যে তাদের মানসিক সমস্যা আছে এবং কোন চিকিৎসক যদি তাকে সুপরামর্শ দেন তাহলে সেই চিকিৎসককে অনেক লাঞ্ছনার শিকার হতে হয়।

কিন্তু রোগীর ক্ষেত্রে ফলাফলটা ভালো হয় না। এই ডিপ্রেশন, দুশ্চিন্তাগ্রস্থতা কিংবা ফোবিয়া দীর্ঘদিন ধরে বিনা চিকিৎসার ফলে সিজোফ্রেনিয়ার মতো দানব রূপে আবির্ভাব হয় যা কিনা পুরো পরিবারকে কাঁদিয়ে ফেলে।

একজন চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে চলাটাই বুদ্ধিমানের কাজ।
বিঃ দ্রঃ এই লেখাটি ২৪/১১/২০১৫ তারিখে Healthnewsbd.com এ ছাপা হয়েছে  মানসিক রোগের কারনে ব্যথা?
ধন্যবাদ

ফয়সাল সিজার

শ্বাসকষ্ট মানে শুধুই হাঁপানি নয়

lungs_1ফরিদ সাহেব (ছদ্ম নাম) একজন সুখী মানুষ। নিজের সফল ব্যবসা এবং সুখের সংসার নিয়ে বেশ ভালোই কাটছে তার দিন। তবে নিজের স্বাস্থ্যের ব্যাপারে উনি তেমন সচেতন নন। ছোটবেলা থেকে তিনি বড় ধরনের কোন রোগে ভোগেননি বলে নিজের স্বাস্থ্যের ব্যাপারে খেয়াল রাখার তেমন প্রয়োজন তিনি কখনো অনুভব করেননি ।

বেশ কিছুদিন ধরে তিনি লক্ষ্য করলেন যে হাঁটার সময় তার শ্বাস নিটে বেশ কষ্ট হচ্ছে এবং সেই সাথে বুকের মধ্যভাগে কিঞ্চিৎ চাপ ও অনুভব করছেন। ব্যাপারটি নিয়ে তিনি কোন চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ না করে, তার এক নিকট বন্ধুর সাথে কথা বলেন।

বন্ধুটি তাকে অভয় দিয়ে বললেন যে এটি হাঁপানি এবং সে নিজেও এই সমস্যায় ভুগছেন এবং তার জন্য একটি ইনহেলার ব্যবহার করছেন। তিনি ফরিদ সাহেবকে সেই ইনহেলার ব্যবহার করার পরামর্শ দেন। বন্ধুর পরামর্শ অনুযায়ী ফরিদ সাহেব সেটি ব্যবহার শুরু করেন।

কিন্তু ইনহেলার ব্যবহার করার পরও ফরিদ সাহেবের অবস্থার কোন পরিবর্তন হয়নি। একরাতে তার শ্বাসকষ্ট সহ বুকে ব্যথা শুরু হয়। তার স্ত্রী তাকে বিএসএসমইউ-এর কার্ডিয়াক ইমারজেন্সিতে নিয়ে আসেন। কর্তব্যরত চিকিৎসক তার একটি ইসিজি করান যেখানে দেখা যায় যে ফরিদ সাহেবের হৃদরোগ রয়েছে।

আমাদের দেশে এখনও শ্বাসকষ্টকে শুধু হাঁপানি কিংবা অ্যাজমার লক্ষন হিসেবে বিবেচনা করা হয়। কিন্তু হাঁপানিতে শুধুমাত্র শ্বাসকষ্ট হয় না। বরং অন্যান্য রোগেও শ্বাসকষ্ট হয় যার জন্য একজন চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়াটা খুবই জরুরী।

কি কি কারনে শ্বাসকষ্ট হতে পারে?

খুবই কমন কারন গুলো হলোঃ

১। ফুসফুসের সমস্যাঃ খুবই কমন কিছু রোগ যেমনঃ হাঁপানি, সিওপিডি, ফুসফুসের প্রদাহ যেমন নিউমোনিয়া, যক্ষ্মা, ফুসফুসের রক্ত সবরাহকারি রক্তনালীতে সমস্যা এবং ফুসফুসের ক্যান্সারের কারনে একজন রোগী শ্বাসকষ্ট অনুভব করতে পারেন।

২। হৃৎপিণ্ডের সমস্যাঃ হৃৎপিণ্ডে রক্ত সরবরাহকারী রক্তনালী গুলো ব্লক হয়ে গেলে একজন রোগী শ্বাসকষ্ট অনুভব করেন। মানবদেহের হৃৎপিণ্ড সঠিক ভাবে রক্ত না পেলে অ্যানজাইনা, হার্ট অ্যাটাক এবং হার্ট ফেইলর জাতীয় রোগ হয় যেগুলোতে শ্বাসকষ্ট হয়।
তাছাড়া, হৃৎপিণ্ডের জন্মগত ত্রুটি, হৃৎপিণ্ডের প্রদাহ, হৃৎপিণ্ডের মাংস বৃদ্ধি এবং রেট এবং রিদম কিংবা ইলেক্ট্রিক্যাল ইম্পালস চলাচলে সমস্যা হলে ও একজন রোগী শ্বাসকষ্ট অনুভব করেন।
৩। রক্তশূন্যতাঃ রক্তে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা কমে গেলেও একজন রোগী শ্বাসকষ্ট অনুভব করেন।
৪। স্থুলতাঃ কারও শরীরের ওজন যদি বেড়ে যায় তাহলে শ্বাসপ্রশ্বাসের জন্য ব্যবহৃত পেশী গুলো অনেক দুর্বল হয়ে যায় এবং তখন একজন রোগী শ্বাসকষ্ট অনুভব করেন।
৫। শ্বাসপ্রশ্বাস নেবার রাস্তাতে কোন সমস্যাঃ এসব রাস্তা গুলো যদি কোন কারনে আটকে যায় তাহলে একজন রোগী শ্বাসকষ্ট অনুভব করেন।
৬। মানসিক রোগঃ মানসিক রোগ যেমন Generalized Anxiety Disorder বা দুশ্চিন্তা গ্রস্থ রোগ এবং Panic Disorder থেকেও একজন রোগীর শ্বাসকষ্ট অনুভূত হয়।
৭। স্নায়ুরোগঃ স্নায়ুরোগ যেমনঃ Guillian-Barre Syndrome, Myasthenia Gravis এবং স্ট্রোক থেকে একজন রোগী শ্বাসকষ্ট অনুভব করেন।
উপরে উল্লেখিত সমস্যা গুলো ছাড়াও বুকের হাড় ভেঙ্গে গেলে, কার্বনমনোক্সাইডের বিষক্রিয়া, খাবারের সময় খাদ্যনালীতে খাবার আটকে গেলে ইত্যাদি কারনেও শ্বাসকষ্ট হয়।
শ্বাসকষ্ট হলে আপনাকে যেসব ব্যাপার গুলো খেয়াল রাখতে হবেঃ
* যদি শ্বাসকষ্টের সাথে আপনার কাঁশি থাকে এবং শ্বাসপ্রশ্বাস নেবার সময় যদি আপনার কানে বাঁশির মতো কোন শব্দ ভেসে আসে তাহলে বুঝতে হবে আপনার হাঁপানি রোগ হয়েছে। সেই সাথে, এই শ্বাসকষ্ট যদি শীতকালে এবং ধুলোবালির সংস্পর্শে বেড়ে যায় তাহলে সেটি হাঁপানি রোগের লক্ষন।
* ভারী কোন কাজ করলে কিংবা হাঁটাহাঁটির সময় শ্বাসকষ্ট অনুভব করলে খেয়াল করবেন বুকের মধ্যভাগে কিংবা বামদিকে চাপ দেওয়া কিংবা চিনচিন ব্যথা অনুভূত হয় কিনা এবং বিশ্রাম নেবার সাথে, সাথে আবার সেই ব্যথা যদি চলে যায় তাহলে Ischaemic Heart Disease-এর সন্দেহ করতে হবে।
* ভারী কাজ করার সময় শ্বাসকষ্ট এবং সেই সাথে যদি বুক ধড়ফড়, অনেকদিন ধরে শরীরের ব্যথা এবং সময় সময়ে জ্বরের ইতিহাস থাকে তাহলে সন্দেহ করতে হবে আপনার হার্টের ভাল্ব গুলোতে কোন সমস্যা হয়েছে।

* বুক জ্বালাপোড়া করার সাথে, সাথে যদি শ্বাসকষ্ট অনুভূত হয় তাহলে হাঁপানি এবং Iscahemic Heart Diasease এই রোগ দুটির কথা মাথায় রাখতে হবে।
* অধিক দুশ্চিন্তা করার সময় কিংবা ভয় পেলে যদি খেয়াল করেন যে আপনার শ্বাসপ্রশ্বাস খুব দ্রুত হচ্ছে এবং আপনি শ্বাস নিতে পারছেন না তাহলে Generalized Anxiety Disorder এবং Panic Disorder নামক মানসিক রোগ গুলোর কথা মাথায় আনতে হবে।
* শ্বাস নিতে কষ্ট হলে খেয়াল করুন আপনার মুখ ফ্যাকাসে হয়ে গিয়েছে কিনা। যদি মুখটা ফ্যাকাসে দেখায় এবং হাতের পাতার সেই গোলাপী ভাবটা আর নেই তাহলে রক্তশূন্যতার ব্যাপারটি সন্দেহ করুন।

উপরে খুবই সাধারণ কিছু রোগের ব্যাপারে আলোচনা করা হয়েছে।

একটি লক্ষণ নানা ধরনের রোগের ইন্ডিকেসন দেয় আর তাই, যেকোন সমস্যায় অবশ্যই একজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিৎ। অবহেলা করলে আপনার অবস্থা কিন্তু ফরিদ সাহেবের মতোই হবে।

এই লেখাটি ১৭/১০/২০১৫ তারিখে Healthnewsbd.com এ ছাপা হয়েছে শ্বাসকষ্ট মানে শুধুই হাঁপানি নয়

ধন্যবাদ

ফয়সাল সিজার